19-Wed-Dec-2018 02:31pm

Position  1
notNot Done

পৃথিবী হারিয়েছে এক বিপ্লবী বন্ধুকে

zakir

2018-01-16 23:05:44

দ্য পলিটিক্স ডেস্ক: ফিদেল আলেজান্দ্রো কাস্ত্রো রুজের জন্ম ১৯২৬-র ১৩ই আগস্ট, কিউবার প্রাক্তন ওরিয়েন্তে (এখনকার হলগুইন) প্রদেশে। শৈশবেই ফিদেলকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল সান্তিয়াগো দে কিউবায়, সেখানেই স্কুলে পড়াশোনা করেন তিনি। ১৯৪৫ সালে হাভানা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন ও সমাজবিজ্ঞান নিয়ে ভর্তি হন।

ফিদেলের রাজনৈতিক চেতনা গড়ে উঠতে থাকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে লাতিন আমেরিকার দেশে দেশে প্রবল আলোড়নের ঘটনায়। কিউবা, আর্জেন্টিনা, কলম্বিয়ায় গণতান্ত্রিক শক্তির উত্থান এবং তাকে ষড়যন্ত্রে দমন করার পিছনে সাম্রাজ্যবাদী হস্তক্ষেপ থেকে জন্ম নিচ্ছিল ক্ষোভ, প্রতিবাদের স্ফুলিঙ্গ। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ে ছাত্র আন্দোলনে যুক্ত হয়ে ফিদেলের চেতনা বিস্তৃত হতে শুরু করে। পরবর্তী সময়ের দ্বিধাহীন আন্তর্জাতিকতাবাদী ফিদেল ডমিনিকান সাধারণতন্ত্রে ট্রুজিলোর স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়াইয় অংশ নিতে কিউবায় সংগঠন গড়ে তোলেন। রাজনৈতিকভাবে অর্থোডক্স পার্টির সঙ্গে যোগাযোগ রাখলেও ফিদেল হয়ে উঠতে থাকেন বামপন্থী। কোন পথে লাতিন আমেরিকার মুক্তি? যে যন্ত্রণার জীবন তিনি চারপাশে দেখছেন, কোন পথে তা থেকে মুক্তি? ফিদেলের নিজের ভাষ্যে, চোখ বাঁধা অবস্থায় অরণ্যের মধ্যে উত্তর-দক্ষিণ না চীনে দিশাহীন ঘুরে বেড়ানো একজনকে দিশা দেখিয়েছিল মার্কসবাদ। সমাজের, ইতিহাসের বিজ্ঞান শিখিয়েছিল মার্কসবাদী রচনা। কিউবার তদানীন্তন কমিউনিস্ট পার্টির সঙ্গে প্রত্যক্ষ সম্পর্ক না রেখেও পার্টির অনেক নেতাদের সঙ্গেই যোগাযোগ রাখতেন তরুণ ফিদেল।

১৯৫২ সালে কিউবায় জেনারেল বাতিস্তা সামরিক অভ্যুত্থানের মধ্যে দিয়ে দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় বসেন। বাতিস্তা-রাজের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের প্রস্তুতি দিয়েই শুরু হয়ে যায় ফিদেলের বিপ্লবী জীবন। বাতিস্তার বিরোধীদের নিয়ে একটি বাহিনী তৈরির কাজে নেতৃত্ব দেন ফিদেল। প্রায় ১২০০ যুবককে সমবেত করেছিলেন। আইনি পথে স্বৈরশাসকের অপসারণ প্রায় অসম্ভব মনে করেই সশস্ত্র লড়াইয়ের দিকে যায় এই বাহিনী। ১৯৫৩সালের ২৬শে জুলাই ফিদেলের নেতৃত্বে ১৬৫জনের বাহিনী মনকাডা সামরিক ঘাঁটি আক্রমণ করে। প্রবল লড়াই হয়, কিন্তু এই আক্রমণ সামরিক ভাবে সফল হয়নি। ফিদেল ও তাঁর সঙ্গীরা পালিয়ে পাহাড়ে চলে যেতে সক্ষম হলেও কয়েকদিনের সেনাবাহিনীর হাতে ধরা পড়ে যান। মনকাডা বিদ্রোহ বাতিস্তা সরকারের ভিত্তি নাড়িয়ে দিয়েছিল।

১৯৫৩-র ১৬ই অক্টোবর শুরু হয় মনকাডা বিদ্রোহীদের বিচার। নিজেই সওয়াল করেছিলেন ফিদেল। বাতিস্তা সরকারের বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সশস্ত্র বিদ্রোহের ন্যায্যতা প্রমাণে ফিদেলের সেই ঐতিহাসিক সওয়াল ‘ইতিহাস আমাকে মুক্ত করবেই’ নামে বিখ্যাত হয়ে আছে। ফিদেল সেই সওয়ালে বলেছিলেন, ‘আমার কন্ঠ রুদ্ধ করার যত চেষ্টাই হোক না কেন আমার ঘোর একাকিত্বের সময়েও তা সোচ্চার হয়েই থাকবে, ভীরুদের প্রত্যাখ্যান সত্ত্বেও হৃদয়মথিত অগ্নিস্পর্শে তা জ্বলে উঠবে।’ বস্তুত ফিদেল কাস্ত্রোর বাকি জীবন এই প্রত্যয়কে সত্য প্রমাণ করেছে। ১৫বছরের কারাদণ্ড হয় ফিদেলের।

১৯৫৫-র মে মাসে ফিদেল, ভাই রাউল সহ বিপ্লবীরা ছাড়া পান। এতদিন গোপনে কাজ করা ২৬শে জুলাই মুভমেন্ট সাংগঠনিক চেহারা পায়, ফিদেলই হন মুখ্যনেতা। কিন্তু কিউবায় বসে বিদ্রোহ সংগঠিত করা কঠিন বুঝে ফিদেল চলে যান মেক্সিকোয়। সেখানে বসেই শুরু হয় কিউবায় বিপ্লবের নতুন প্রস্তুতি। মেক্সিকো তখন ছিলো লাতিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক কারণে নির্বাসিতদের আশ্রয়স্থল। গুয়াতেমালায় আরবানেজ সরকারকে হঠিয়ে সি ‌আই এ-র মদতে অভ্যুত্থানের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে চে গুয়েভারাও তখন মেক্সিকোতেই। ১৯৫৫-র জুলাইয়ে প্রথম দেখা হয় বিংশ শতাব্দীর দুই বিপ্লবপথিকের। ফিদেলের ভাষ্যে চে তখনই মার্কসবাদী। এক প্রবাসী কিউবানের বাড়িতে প্রথম সাক্ষাতেই দু’জন পরস্পরের প্রতি আকৃষ্ট হন এবং সঙ্গে সঙ্গেই ফিদেলের বাহিনীর সঙ্গী হয়ে যান চে।

মেক্সিকোয় অস্ত্র প্রশিক্ষণও নেয় এই বাহিনী। ১৯৫৬-র ২৫শে নভেম্বর ফিদেল, চে, রাউল সহ ৮১জন নৌকো ‘গ্রানমা’-য় চেপে রওনা দেয় মেক্সিকোর টুক্সপান থেকে। কিউবার পূর্ব উপকূলে এসে নৌকা পৌঁছোয় ৩রা ডিসেম্বর। সশস্ত্র বিপ্লবীরা কিউবায় ঢুকে পড়েন। কিন্তু সেনাবাহিনীর ঝটিতি আক্রমণে বিপ্লবীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যেতে বাধ্য হন। সিয়েরা মায়েস্ত্রার পাহাড়ে-জঙ্গলে ঘাঁটি গেড়ে চলতে থাকে গেরিলা যুদ্ধ। দু’বছরের বেশি সময় ধরে এই লড়াইয়ে কৃষক সমাজকে পাশে টেনে নেয় বিপ্লবীরা, লড়াই ছড়িয়ে পড়তে থাকে দেশের নানা প্রান্তেও। বাতিস্তার সেনাবাহিনীকে একের পর এক সংঘর্ষে পরাস্ত করতে থাকে গেরিলারা। ১৯৫৮-র নভেম্বরে ফিদেলের নেতৃত্বে চূড়ান্ত অভিযানের লক্ষ্যে বাহিনী যায় সান্তিয়াগো দে কিউবায়। বাতিস্তা দেশ ছেড়ে পালান। ১৯৫৯-র ১লা জানুয়ারি বিপ্লবীরা ক্ষমতা দখল করে। ফিদেল হাভানায় ঢোকেন ১৯৫৯-র ৮ই জানুয়ারি। তৈরি হয় বিপ্লবী সরকার। শুরুতে ফিদেল ছিলেন সেই সরকারের বিপ্লবী সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান। পরে, ফেব্রুয়ারিতে বিপ্লবী সরকারের প্রধানমন্ত্রী হন ফিদেল। শুরু হয় বিপ্লবের নতুন পর্ব- কিউবাকে নতুন করে গড়ে তোলা।

শুরু হয়ে যায় কিউবাকে, বিপ্লবের মুখ্য নেতাকে খতম করার মার্কিনী পরিকল্পনাও। ১৯৫৯-র ডিসেম্বরেই মার্কিন রাষ্ট্রপতি আইজেনহাওয়ার সি আই এ-র একটি পরিকল্পনা অনুমোদন করেন যেখানে বলা হয়েছিল এক বছরের মধ্যে ফিদেল কাস্ত্রোকে হঠাতে হবে। চেষ্টার ত্রুটি রাখেনি দুনিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী সাম্রাজ্যবাদী শক্তি। শতাধিক বার খুনের চেষ্টা হয়েছে ফিদেলকে। কখনো হোটেলের খাবারে বিষ মিশিয়ে, কখনো সমুদ্র উপকূলে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে। পাঠানো হয়েছে মার্কিন প্রশিক্ষিত প্রতিবিপ্লবীদের, আক্রমণ হয়েছে উপকূলে, অবরোধ তৈরি করা হয়েছে কিউবাকে অর্থনৈতিক ভাবে পঙ্গু করে ফেলতে। ফিদেল ও কিউবা রুখে দিয়েছে সব কিছুকেই। এর মধ্যে ১১জন মার্কিন রাষ্ট্রপতি বদলে গেছেন, ফিদেল এবং কিউবাকে পরাস্ত করা যায়নি।  

প্রতিস্পর্ধী ফিদেল ১৯৬০সালে মার্কিনী মালিকানার তেল, চিনি, টেলিযোগাযোগ, বিদ্যুৎ কোম্পানি রাষ্ট্রায়ত্ত করে নেন। পরে কিউবার ধনীদের বড় সম্পত্তিও বাজেয়াপ্ত করা হতে থাকে। জমি বণ্টনের আইন চালু হয়। শুরু হয় সাক্ষরতার অভিযান— যে অভিযানে এক সময় কিউবা ছাড়িয়ে যায় উন্নত ধনতান্ত্রিক দেশগুলিকেও। ১৯৬১-র এপ্রিলে ফিদেল ঘোষণা করেন, এই বিপ্লব সমাজতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক।

মার্কিন আগ্রাসনের অন্যতম ছিলো ১৯৬২-র বে অফ পিগসে মার্কিন মদতের হামলা। ৭২ঘন্টার মধ্যে সেই আগ্রাসন রুখে কিউবা দুনিয়াকে দেখিয়ে দেয় সাম্রাজ্যবাদের থেকে শক্তিশালী হলেন ঐক্যবদ্ধ জনগণ। অলিভ রঙের সামরিক পোশাকে কাঁধে রাইফেল নিয়ে সেই অভিযানেও ছিলেন ফিদেল।

ফিদেল প্রথম থেকেই ছিলেন আন্তর্জাতিকতাবাদী। ১৯৬৩-র অক্টোবরে আলজেরিয়ার রাষ্ট্রপতি আহমেদ বেন বেল্লার অনুরোধে কিউবার সেনারা আগ্রাসনের হাত থেকে সে দেশকে বাঁচাতে যায়। আফ্রিকায় কিউবার আন্তর্জাতিকতাবাদী অংশগ্রহণের সে ছিলো প্রথম পদক্ষেপ। এর পরে অ্যাঙ্গোলা, মোজাম্বিক থেকে কঙ্গোর লড়াইয়ে সরাসরি অংশ নিয়েছে কিউবার বাহিনী, অংশ নিয়েছিলেন স্বয়ং চে। নামিবিয়াকে বর্ণবিদ্বেষী শাসন থেকে মুক্ত করতে পালন করেছেন অগ্রণী ভূমিকা। ফিদেল নিজে তীব্র মার্কিনী আক্রমণের মুখে চিলি, বলিভিয়া, ভেনেজুয়েলার লড়াইয়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন। লাতিন আমেরিকায় একবিংশ শতাব্দীর গোড়ায় একের পর এক দেশে বামপন্থীদের অগ্রগতির পিছনে মূল প্রেরণা হিসাবে কাজ করছিলেন ফিদেল। উগো সাভেজ থেকে ড্যানিয়েল ওর্তেগা ‘কমান্দান্তে’ হিসাবে দেখেছেন কাস্ত্রোকেই। শুধু রাজনীতিই নয়, কিউবার স্বাস্থ্যকর্মীরা লাতিন আমেরিকা, আফ্রিকা, এশিয়ার দেশে দেশে অসাধারণ কাজ করে শ্রদ্ধা অর্জন করেছেন।

১৯৬৫-র অক্টোবরে কিউবার কমিউনিস্ট পার্টি পুনর্গঠিত হয়। কেন্দ্রীয় কমিটির ফার্স্ট সেক্রেটারি হন ফিদেল।

কিউবার বিপ্লবের কঠিন সংকট আসে সোভিয়েত ইউনিয়ন সহ সমাজতান্ত্রিক দেশগুলির বিপর্যয়ের সময়ে। মিখাইল গরবাচ্যভের ‘পেরেস্ত্রোইকা’-র কড়া সমালোচনা করে ফিদেল বলেছিলেন, সমাজতন্ত্রের নীতিরই তা বিরোধী। ১৯৯০-এ কিউবায় ‘বিশেষ পর্ব’ শুরু হয়। জ্বালানি, বিদ্যুৎ নিয়ন্ত্রণ থেকে উৎপাদন ও বণ্টনে নানা ধরনের শৃঙ্খলা আরোপ করতে বাধ্য হয় কিউবার সরকার। ১৯৯১-র সেপ্টেম্বরে গরবাচ্যভ কিউবা থেকে সোভিয়েত সেনা ও প্রযুক্তিবিদদের প্রত্যাহার করে নেন। কিউবা বিপ্লবের আসন্ন বিপর্যয় সম্পর্কে ভবিষ্যৎবাণী শোনা যায় বিশ্বজুড়ে। সেই সুযোগেই ১৯৯২-তে কিউবার বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা কঠোরতর করে মার্কিন কংগ্রেসে পাস হয় টোরিসেল্লি আইন। কিউবাকে ধ্বংস করা যাচ্ছে না দেখে ১৯৯৬-এ পাস হয় হেমস-বার্টন আইন। নয়া উদারনীতির পথে না হেঁটে কিউবা বাঁচে মাথা উঁচু করে। বরং কিউবার অর্থনীতি ধীরে ধীরে আরো উন্নত হয়ে ওঠে। এই সমগ্র পর্বে ফিদেল দৃঢ়তার সঙ্গে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

২০০৬সালে ফিদেল নিজে থেকেই দেশের রাষ্ট্রপ্রধান পদ থেকে অব্যাহতি নেন। কিউবার রাষ্ট্রপতি হন তাঁর সহযোদ্ধা ও ভাই রাউল। কিন্তু ‘এল কমান্দান্তে’ ছিলেন দেশের প্রধান মতবাদিক উপদেষ্টা। শুধু কিউবার নয়, ফিদেল সমগ্র লাতিন আমেরিকায় বিপ্লবী আন্দোলনের প্রেরণা হিসাবে বিবেচিত হয়েছেন। যে ফিদেলকে বিচ্ছিন্ন করতে চেয়েছিল ওয়াশিংটন সেই তিনিই হয়ে ওঠেন লাতিন আমেরিকার অভিভাবক।

গত ছয় দশক ধরেই ফিদেল একদিকে হয়ে থেকেছেন বিদ্রোহের ‘আইকন’, অন্যদিকে আকর্ষণ করেছেন চিন্তাবিদ থেকে ক্রীড়াবিদদের। কিউবা বিপ্লবের পরপরই সে দেশে ছুটে গিয়েছিলেন কবি নাজিম হিকমত, দার্শনিক-সাহিত্যিক জাঁ পল সার্ত্রে। সাহিত্যিক গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেজ ছিলেন ফিদেলের প্রাণের বন্ধু। আবার, ফুটবলার দিয়েগো মারাদোনাকে মাদকে আসক্তি থেকে মুক্ত করতে কিউবায় রেখে পরম যত্নে চিকিৎসা করিয়েছেন ফিদেল।

দীর্ঘ বক্তৃতা দিতেন তিনি। কথিত আছে, রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ১৯৬০সালে ফিদেল ভাষণ শুরু করেছিলেন এই বলে যে খুব সংক্ষেপেই বলবেন তিনি, তারপর বলেছিলেন সাড়ে চার ঘন্টা। কিন্তু সেই বক্তৃতাতেই ফিদেল দেখিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক লগ্নি পুঁজির লালসা ও যুদ্ধের মধ্যে সম্পর্ক কী। সাম্রাজ্যবাদ রূপ বদলেছে, ফিদেলের তির ঠিক খুঁজে নিয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনে বিপন্ন গ্রহ— ফিদেল বারংবার দেখিয়েছেন সাম্রাজ্যবাদই সেই বিপদের উৎস।