17-Mon-Dec-2018 07:40am

Position  1
notNot Done

নতুন বামজোটের আত্মপ্রকাশ

Ghani al-Maruf

2018-07-18 22:25:00

দ্য পলিটিক্স রিপোর্ট: আটটি বাম রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে নতুন জোটের আত্মপ্রকাশ উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে নেতারা আগামী নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে জাতীয় সংসদ ভেঙে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন।তারা বলেন, বর্তমান সরকারের পদত্যাগ, সব দল ও সমাজের অপরাপর অংশের মানুষের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন এখন সময়ের দাবি। দেশে এখন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের পুনর্গঠন এবং গোটা নির্বাচন ব্যবস্থার আমূল সংস্কার অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। বুধবার পল্টনের মুক্তিভবনের মৈত্রী মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে এ জোটের নাম ঘোষণা করা হয়। নতুন এ জোটের নাম দেয়া হয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোট।
জোটের আটটি শরিক দল হচ্ছে- সিপিবি, বাসদ, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ (মার্কসবাদী), গণসংহতি আন্দোলন, বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টি, এবং বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলন।
সংবাদ সম্মেলনে সূচনা বক্তব্য রাখেন বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান। মূল বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম।
উপস্থিত ছিলেন জোটের নেতাদের মধ্যে- বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ মোশারফ হোসেন নান্নু।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয় যে, গোটা নির্বাচনী ব্যবস্থাকে কার্যত ভেঙে দেয়া হয়েছে। এবং নির্বাচন পুরোপুরি টাকার খেলায় পর্যবেসিত হয়েছে। ভোটের আনুপাতিক প্রতিনিধিমূলক ব্যবস্থা প্রবর্তনসহ এ সমগ্র নির্বাচনী ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ছাড়া গণতান্ত্রিক পরিবেশে অবাধ, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনে কোনো অবকাশ নেই।
গত ক’বছরের অভিজ্ঞতাও সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করেছে যে, দলীয় সরকারের অধীনে বাংলাদেশে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের সুযোগ নেই। সরকার অনুগত নির্বাচন কমিশন দিয়েও সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব নয়। পাশাপাশি জনগণের ম্যান্ডেটহীন জাতীয় সংসদ বহাল রেখেও সব দল ও জনগণের জন্য নির্বাচনের সমান সুযোগ তৈরি হবে না।